মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

উপজেলা প্রশাসনের পটভূমি ।

বৃটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি এদেশে বানিজ্যিক উদ্দেশ্যে আসে এবং কালক্রমে রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক ক্ষমতা গ্রহণ করে । ঔপনিবেশিক আমলে বিভাগ, জেলা ও থানাকে প্রশাসনিক ইউনিট হিসেবে সৃষ্টি করে । ভারতের গভর্ণর জেনারেল ওয়ারেন হেস্টিংস ১৭৭২ খ্রিষ্টাব্দে বঙ্গ প্রদেশকে ২৩ টি জেলায় বিভক্ত করেন । প্রতি জেলায় রাজস্ব আদায় সংক্রান্ত দেওয়ানী মামলার শুনানী গ্রহনের জন্য একজন কালেক্টর নিয়োগ করেন । বৃটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির বোর্ড অব ডাইরেক্টরস ১৭৮৬ খ্রিস্টব্দে দেশীয় দেওয়ানের পদ বিলোপ করে কালেক্টরকে স্থানীয় ইউনিট করার সিন্ধান্ত গ্রহণ করে এবং রাজস্ব প্রশাসন, সিভিল জজ ও ম্যাজিষ্ট্রেট ইত্যাকার অফিসকে কালেক্টরের অফিসের সাথে সম্পৃক্ত করার জন্য সুপ্রীম কাউন্সিলকে নির্দেশ প্রদান করে । ‍উক্ত আদেশের প্রেক্ষিতে, মেকপারসন (Macpherson)১৭৮৬ খ্রিস্টাব্দে বংগ প্রদেশকে ৩৬ টি জেলায় বিভক্ত করে প্রত্যেক জেলায় একজন কালেক্টর নিয়োগ করেন । ১৭৯৩ খ্রিস্টব্দে কালেক্টরকে আইন-শৃংখলা রক্ষার দায়িত্ব, ম্যাজিষ্ট্রেসী ক্ষমতা প্রদান ও রাজস্ব আদায়ের সার্বিক দায়িত্ব দেয়া হয় । ১৮৭২ খ্রিস্টব্দে স্যার জর্জ ক্যামবেল (Campbell), জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট এর ক্ষমতাকে আরও সূদৃঢ করেন । এ সময় জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট ও কালেক্টরকে জেলা পর্যায়ে অন্যান্য বিভাগীয় অফিসের কাজকর্মের তত্ত্বাবধানের ক্ষমতা প্রদান করার মাধ্যমে তাকে জেলা পর্যায়ে প্রধান নির্বাহী ও প্রশাসক হিসেবে গড়ে তোলা হয় । ১৯৩০ খ্রিস্টাব্দে সাইমন কমিশন মত প্রকাশ করে যে, কালেক্টর জেলা প্রশাসকের প্রধান হিসেবে পুলিশ সুপার ও অন্যান্য কারিগরি বিভাগের প্রধানগনের ওপর থাকবেন । ১৯৪৭ খ্রিস্টব্দে পাকিস্থান সৃষ্টি হবার পর থেকে সমগ্র দেশকে বিভাগ, জেলা ও মহকুমা এবং থানা পর্যায়ে প্রশাসনিক ইউনিটে রূপান্তর করা হয় । এ সময় জেলা প্রশাসক শক্তিশালী ইউনিট হিসেবে আত্নপ্রকাশ করে । কালেক্টর /জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট /ডেপুটি কমিশনার জেলার প্রধান নির্বাহী হিসেবে জেলায়  তদারকী ও সমন্বয়মূলক ভূমিকা পালন করে আসছেন । স্বাধীনতাত্তোর বাংলাদেশ বিভাগ, জেলা, মহকুমা ও থানা প্রশাসনিক ইউনিট হিসেবে বহাল থাকে এবং জেলা প্রশাসক শক্তিশালী ইউনিট হিসেবে আত্নপ্রকাশ করে । জেলা প্রশাসনের কেন্দ্রবিন্দু হিসেবে জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট /কালেক্টর/ জেলা প্রশাসক জেলা রাজস্ব আদায়, আইন শৃংখলার সার্বিক দায়িত্ব ও ফৌজদারী বিচার প্রশাসনসহ আন্তবিভাগীয় কাজের সমন্বয় সাধন করেন । বর্তমানে জেলা প্রশাসক সাধারন, রাজস্ব প্রশাসন, ফৌজদারী বিচার প্রশাসন, আইন-শৃংখলা রক্ষা, উন্নয়নপ্রশাসন ছাড়াও জেলা পর্যায়ের আন্তঃবিভাগীয় কাজের সমন্বয় সাধনের মত গুরুত্বপূর্ন দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে একটি প্রতিষ্ঠান হিসেবে সমাদৃত । চার স্তর বিশিষ্ট প্রশাসনিক কাঠামোতে উপজেলা একটি শক্তিশালী ইউনিট ।

 

বর্তমানে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এর কার্যালয়, চৌহালী, সিরাজগঞ্জ জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ের অধিনে জেলা প্রশাসক, সিরাজগঞ্জ এর নিয়ন্ত্রনাধীন একটি অফিস । জেলা প্রশাসক জেলার মধ্যে সকল উপজেলা নির্বাহী অফিসের নিয়ন্ত্রন করেন । সরকারি কর্ম কমিশনের মাধ্যমে নিয়োগ প্রাপ্ত উপজেলানির্বাহী অফিসার এ দপ্তরের প্রধান । মাঠ প্রশাসনে উপজেলা পর্যায়ে একটি প্রধান নির্বাহী অফিস । মাঠ প্রশাসনের যাবতীয় প্রশাসনিক কার্যক্রম, আইনশৃংখলা ও ম্যাজিস্ট্রেসি দায়িত্ব, পাবলিক পরীক্ষা গ্রহন, উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন, মনিটরিং ও তদারক, হাট-বাজার ইজারা প্রদান, ত্রাণ কার্যক্রম বাস্তবায়ন, ভূমি প্রশাসন বিষয়ক কার্যক্রম বাস্তবায়ন ও তদারক করা এ কার্যালয়ের কার্যক্রমের অর্ন্তভুক্ত । উপজেলা পরিষদের সাচিবিক দায়িত্বপালন সহ উপজেলা পর্যায়ের সকল বিভাগের কার্যক্রমের সমন্বয় সাধন ও সরকার ঘোষিত বিভিন্ন কর্মসূচী বাস্তবায়ন করেন । উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাঠ পর্যায়ে কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতিভূ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন ।